হিন্দুদের ভালোবাসলেই কি মুসলিমদের ঘৃণা করতে হবে? পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মাননীয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বারবার অভিযোগ উঠেছে যে তিনি নাকি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের তথা মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকেদের তোষণ করেন। ভোট ব্যাংকের সস্তা রাজনীতির জন্যেই নাকি তিনি বারবার তোষণের পথে হাঁটেন। খুশির ঈদের দিনে সেই সকল সমালোচকদের জবাব দিলেন তিনি।

ঈদ উপলক্ষে শনিবার কলকাতার রেড রোডের অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘অনেকের অভিযোগ আমি নাকি মুসলিম তোষণ করি। যদি হিন্দুদের আমি ভালোবাসি তাহলে কী মুসলিমদের ঘৃণা করতে হবে?’

অভিযোগকারীদের প্রতি প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেছেন, ‘আমি সকল সকল ধর্ম এবং সম্প্রদায়ের লোকেদেরকেই সম্মান করি। এই দেশ সকলের।’

ভারতের কেন্দ্রীয় শাসকদল বিজেপি-র পক্ষ থেকে বহুবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগ তোলা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের সুবিশাল মুসলিম ভোট ব্যাংক দখল করতেই নাকি মুসলিম তোষণ করেন মমতা। এই একই অভিযোগ বিজেপি ছাড়াও অন্যান্য অনেক রাজনৈতিক দলও করেছে বিভিন্ন সময়ে।

সেই সকল অভিযোগকারীদের আক্রমণ করে এদিন মমতা বলেন, ‘যারা আমার বিরুদ্ধে মুসলিম তোষণের অভিযোগ করে তারা হিন্দু বা মুসলিম কারো বন্ধু নয়।’ আগামী বছরে সমগ্র ভারত জুড়ে অনুষ্ঠিত হবে লোকসভা নির্বাচন। দেশের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আগে সমস্ত সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদ দূর করার ডাক দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসনিক প্রধান।

সন্ত্রাসের সঙ্গে কোনও ধর্মের যোগ থাকে না বলেও দাবি করেছেন তৃণমূল নেত্রী। তাঁর কথায়, ‘আমাদের বুঝতে হবে যে সন্ত্রাসের কোনও ধর্ম হয় না। দেশ থেকে সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদ দূর করতে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে সকলকে এক হতে হবে।’ নতুন ভারত গড়ার লক্ষ্যে সবাইকে একসঙ্গে লড়াই করার আহ্বান জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কালের কণ্ঠ অনলাইন

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!