স্বামী-সন্তান ছেড়ে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন

মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক। তারপর প্রেমিকের বিয়ের আশ্বাস পেয়ে স্বামীর ঘর ছেড়ে প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে উঠেছেন এক সন্তানের মা গৃহবধূ ময়না আক্তার। কেবল তা-ই নয়, বিয়ের দাবিতে তিনি প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করছেন। ঘোষণা দিয়েছেন বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করবেন। ৬ এপ্রিল, শুক্রবার শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জের চরভাগা ইউনিয়নের পাল কান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। অভিযোগকারীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ময়না আক্তারের গ্রামের বাড়ি মানিকগঞ্জ জেলার সিঙ্গাইরে। তিনি উপজেলার কোমর আলী মালের মেয়ে। তিন মাস আগে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভেদরগঞ্জ উপজেলার চরভাগা ইউনিয়নের পাল কান্দি গ্রামের শফিক পালের ছেলে জসিম উদ্দিনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্কের এক মাস পর জসিম তাকে বিয়ে করার আশ্বাস দেন। একপর্যায়ে স্বামী ও দুই বছর বয়সী মেয়েকে রেখে জসিমের কাছে চলে আসেন তিনি। পরে জসিম বিয়ে না হওয়ার বিষয়টি গোপন রেখে তার কানের দুল, হাতের চুড়ি, গলার হার ও মোবাইল ফোন বিক্রি করে ঢাকার গাজীপুরে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে সংসার শুরু করেন। ময়না আরও জানান, বিয়ের জন্য জসিমকে বারবার চাপ দিতে থাকলে তিন দিন আগে তাকে রেখে পালিয়ে যান জসিম। পরে জসিমের এক কাছের বন্ধু আল-আমিনের সহযোগিতায় ঢাকা থেকে লঞ্চযোগে জসিমের গ্রামের বাড়িতে আসেন তিনি। বর্তমানে তিনি এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা। জসিমের কারণে তিনি স্বামী, সন্তান, মা-বাবা, আত্মীয়-স্বজন হারিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন। এদিকে জসিম তাকে গ্রহণ না করে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাই নিরুপায় হয়ে জসিমের বাড়িতে চলে এসেছেন তিনি। জসিমকে না পেলে তিনি আত্মহত্যা করবেন বলে জানান। এ বিষয়ে জসিমের সঙ্গে মোবাইলে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে তার মা তাসলিমা বেগমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘জসিম এখন ঢাকায় আছে। মোবাইল ধরছে না, তাই যোগাযোগও করতে পারছি না। আমার মনে হয় এটা বড় ধরনের কোনো ষড়যন্ত্র।’ সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুরুল হক আকন্দ বলেন, ‘এ ধরনের ঘটনা আমার জানা নেই। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!