সারাদেশে জামায়াতের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ !

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজধানীসহ সারা দেশের ৪৩টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চায় নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াতে ইসলামী। দলটির সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান ঢাকা-১৫ (কাফরুল-মিরপুর) আসনে নির্বাচন করতে চান। ইতিমধ্যে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র তুলেছেন। এর বাইরে সারা দেশের আরও ৪২ জন জামায়াত নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র কিনেছেন। এসব আসনে কোনো ছাড় দিতে চান না জামায়াত নেতারা।

তবে আরও বেশ কিছু আসনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছে। জানতে চাইলে জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সেক্রেটারি জেনারেল ড. রেজাউল করিম মঙ্গলবার যুগান্তরকে বলেন, আমাদের দলের সেক্রেটারি জেনারেল ঢাকা-১৫ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চান।

এর আগে এই আসনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের সাব সেক্টর কমান্ডার হামিদুল্লাহ খান। তিনিও ইন্তেকাল করেছেন। এই আসনে জামায়াতের সাবেক নেতা মীর কাশেম আলী নানা সামাজিক কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন। নির্বাচনের ক্ষেত্র প্রস্তুত করে গেছেন। এ কারণে আমাদের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিককে নির্বাচন করার জন্য দল থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। কারণ ২০ দলীয় জোটের নেতা হিসেবে সার্বক্ষণিক তাকে ঢাকায় থাকতে হয়। এ বিষয়ে ২০ দলের সঙ্গে আলোচনা চলছে।

জামায়াতের এই নীতিনির্ধারক আরও জানান, সারা দেশের ৪২টি আসনে জামায়াত নেতারা মনোনয়নপত্র কিনেছেন। ওইসব আসনে জোটগতভাবে নির্বাচন করার চেষ্টা করছেন তারা। না হলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তারা নির্বাচন করবেন। তবে আসন সংখ্যা আরও ৮ থেকে ১০টি বাড়তে পারে।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জামায়াতের প্রার্থীরা হলেন ঠাকুরগাঁও-২ (বালিয়াডাঙ্গী-হরিপুর) আসনে মাওলানা আবদুল হাকিম, দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনে মাওলানা আবু হানিফ, দিনাজপুর-৪ (খানসামা-চিরিরবন্দর) আসনে মাওলানা আফতাব উদ্দিন মোল্লা, দিনাজপুর-৬ (নবাবগঞ্জ-বিরামপুর-হাকিমপুর ঘোড়াঘাট) আসনে আনোয়ারুল ইসলাম,নীলফামারী-১ আসনে মাওলানা আবদুস সাত্তার,

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে অধ্যাপক মাজেদুর রহমান, গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী) আসনে মাওলানা নজরুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ) আসনে ড. কেরামত আলী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (সদর) আসনে নুরুল ইসলাম বুলবুল, রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনে অধ্যাপক মুজিবুর রহমান, নাটোর-১ আসনে অধ্যাপক তাসনিম আলম, নওগাঁ-৪ (মান্দা) আসনে খ. ম. আবদুর রাকিব,সিরাজগঞ্জ-৪ (উল্লাপাড়া-সলঙ্গা) আসনে মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, বগুড়া-৫ (শেরপুর ধুনট) আসনে দবিবুর রহমান।

পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়া) আসনে ডা. আবদুল বাসেত, পাবনা-৪ (আটঘরিয়া-ঈশ্বরদী) আসনে অধ্যাপক আবু তালেব মণ্ডল, পাবনা-৫ (সদর) আসনে অধ্যক্ষ ইকবাল হোসাইন, কুষ্টিয়া-২ (মিরপুর-ভেড়ামারা) আসনে মুহাম্মদ আবদুল গফুর, চুয়াডাঙ্গা-২ (দামুড়হুদা-জীবননগর) আসনে মোহাম্মদ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ-৩ (মহেশপুর-কোটচাঁদপুর) আসনে অধ্যাপক মতিয়ার রহমান, যশোর-১ (শার্শা) আসনে মাওলানা আজিজুর রহমান, যশোর-২ (চৌগাছা-ঝিকরগাছা) আসনে আবু সাঈদ মুহাম্মদ শাহাদত হোসাইন, যশোর-৫ আসনে গাজী এনামুল হক, যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে অধ্যাপক মুক্তার আলী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

এছাড়া বাগেরহাট-৩ (মোংলা-রামপাল) আসনে অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াদুদ, খুলনা-৫ (ফুলতলা-ডুমুরিয়া) আসনে অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) মাওলানা আবুল কালাম আযাদ, সাতক্ষীরা-১ (কলারোয়া-তালা) আসনে অধ্যক্ষ ইজ্জতুল্লাহ, সাতক্ষীরা-২ (সদর) আসনে মুহাদ্দিস আবদুল খালেক,সাতক্ষীরা-৩ (আশাশুনি-দেবহাটা) আসনে মুফতি রবিউল বাশার, সাতক্ষীরা-৪ (কালীগঞ্জ-শ্যামনগর) আসনে গাজী নজরুল ইসলাম, পিরোজপুর-১ (সদর-নাজিরপুর-স্বরূপকাঠি) আসনে শামীম সাঈদী, পটুয়াখালী-২ (বাউফল) আসনে ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, ময়মনসিংহ-৬ (ফুলবাড়িয়া) আসনে অধ্যাপক জসিম উদ্দিন,

কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মো. তাহের, লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর-সদর আংশিক) আসনে মাস্টার রুহুল আমীন, লক্ষ্মীপুর-৩ আসনে ডা. আনোয়ারুল আজিম, ফেনী-৩ আসনে ডা. ফখরুদ্দিন মানিক, চট্টগ্রাম-১০ (ডাবলমুরিং) আসনে শাহজাহান চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৫ (লোহাগাড়া-সাতকানিয়া) আসনে মাওলানা শামসুল ইসলাম,চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) মাওলানা জহিরুল ইসলাম, কক্সবাজার-২ (কুতুবদিয়া-মহেশখালী) আসনে হামিদুর রহমান আজাদ মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

এসব আসনে কোনোভাবেই ছাড় দিতে নারাজ জামায়াতের নীতিনির্ধারকরা। উল্লেখ্য, ১৯৮৬ সালের ৭ মে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামী ৭৬টি আসনে মনোনয়ন দিয়েছিল। ওই নির্বাচনে দলটি ১০টি আসনে বিজয়ী হয়। ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করে জামায়াত। ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্র“য়ারি নির্বাচনে জামায়াত ১৮টি আসনে বিজয়ী হয়।

এই নির্বাচনে দলটি ২২২ জন প্রার্থী দিয়েছিল। ১৯৯৬ সালের ১২ জুন অনুষ্ঠিত সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামায়াত ৩টি আসনে জয়ী হয়। ২০০১ সালের ১ অক্টোবর নির্বাচনে জামায়াত ১৭টি আসন পায়।মহিলা আসনগুলো থেকে ৪টি আসনে জয়ী হয় তারা। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জামায়াত ২টি আসনে বিজয়ী হয়। ওই নির্বাচনে দলটি জোটগতভাবে ৩৯টি ও ৪টিতে এককভাবে নির্বাচন করে। সুত্রঃ যুগান্তর

https://www.facebook.com/ProfMujiburRahman/videos/295358021320059/

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!