সরকারের সমালোচনা মানেই কি ‘স্বাধীনতার বিরোধিতা’ করা?

মোহাম্মদ রিয়াদ
বাংলাদেশে ফেসবুক আলোচনা পর্যালোচনা করলে এক অদ্ভুত পরিস্থিতি বোঝা যায়৷ কেউ সরকারের সমালোচনা করলেই তাকে ‘স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি’ হিসেবে তকমা দেয়া হয় অথবা অনেক সময় আবার বিভিন্ন হয়রানির সম্মুখীন হতে হয় ।গঠনমূলক সমালোচনা সহ্য করা বড় কঠিন ক্ষমতাসীনদের পক্ষে৷ একটি ঘটনার দিকে নজর দেয়া যাক৷ রামপালে প্রস্তাবিত বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতা করছেন অনেকে৷ তাদের মধ্যে কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত নন এমন সাধারণ মানুষ যেমন আছেন, তেমনি আছেন পরিবেশবিদ, অ্যাক্টিভিস্ট, এমনকি বামদলের সমর্থকসহ অনেকে৷ আবার রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্রের পক্ষে সোচ্চারদের মধ্যে আছেন ক্ষমতাসীন দলের সক্রিয় সমর্থকসহ রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত নন এমন মানুষও৷ এই দুই পক্ষের মধ্যে বিতর্কটা কি গঠনমূলক হচ্ছে?
ক্ষমতাসীনদলের সমর্থকরা রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতাকারীদের ফেলছেন ‘ভারত বিরোধীদের’ তালিকায়৷ তাদের যুক্তি হচ্ছে ভারতের বিরোধীতা করা উদ্দেশ্যে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতা করছেন অনেকে৷ অথচ যারা বিরোধিতা করছেন, তারা সুনির্দিষ্ট বিভিন্ন কারণ দেখাচ্ছেন , সুনির্দিষ্ট প্রশ্ন করছেন, যেগুলোর সঠিক উত্তর সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে দিচ্ছে না৷ উল্টো সরকারের সমর্থকরা নানাভাবে বিরোধিতাকারীদের দেশের উন্নয়নবিরোধী আখ্যা দিয়ে ‘জঙ্গিবাদ ইস্যু’ থেকে মানুষের নজর ঘোরাতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সুন্দরবনের কাছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতা করা হচ্ছে বলেও দাবি করছেন৷ আর এ সব দাবি, বিতর্ককে নিয়ে যাচ্ছে অসুস্থ পর্যায়ে৷ কেননা ‘ভারত বিরোধিতা’ বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক বড় ইস্যু৷ ফলে সুন্দরবন বাঁচানোর আন্দোলনটাকে পুরোপুরি সরকারবিরোধী রাজনৈতিক আন্দোলনের চেষ্টা হিসেবে প্রমাণ করতেই বলা হচ্ছে ভারত বিরোধীরা এটা করছেন৷
Mohammad Riad, Mymensingh

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!