লক্ষাধিক ‘অবৈধ’ বাংলাদেশিকে ইউরোপ ছাড়তে হবে

অভিবাসন ইস্যুতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নতুন চুক্তির কারণে ইউরোপের জোটভুক্ত বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে বসবাসকারী ১ লাখের বেশি বাংলাদেশিকে দেশে ফিরতে হচ্ছে। শুক্রবার স্বাক্ষরিত চুক্তিতে অভিবাসন নিয়ন্ত্রণে মহাদেশীয় সীমান্তে কাড়াকড়ি আরোপ এবং ইউরোপে অভিবাসন প্রত্যাশীদের আবেদন প্রত্যাখ্যাত হলে দেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়া অভিবাসন প্রত্যাশীদের এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাওয়া বন্ধ করতে এবং তুরস্ক ও লিবিয়ার মতো ইউরোপের সীমান্তবর্তী দেশগুলোতে অভিবাসন ঠেকাতে প্রণোদনা দেয়ারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরোপীয় জোট। এসব কারণে বিভিন্ন সময়ে ইউরোপে প্রবেশ করা ১ লাখের বেশি অবৈধ অভিবাসী বাংলাদেশিরা বিপাকে পড়তে যাচ্ছেন। এতে করে উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় পড়েছে সেখানকার অভিবাসনপ্রত্যাশী বাংলাদেশিরা। সম্প্রতি মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট এক প্রতিবেদনে জানায়, ইউরোপে প্রবেশকারী অবৈধ অভিবাসীদের মধ্যে বাংলাদেশিদের সংখ্যা এখন সবচেয়ে বেশি। এক সময় লক্ষ্য মধ্যপ্রাচ্য হলেও এখন অঞ্চলটি থেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন বাংলাদেশি অভিবাসীরা। তারা এখন ইউরোপমুখী হয়ে পড়ছেন। সরকারি সূত্রগুলো বলছে, অবৈধ বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বাংলাদেশকে গত বছর থেকে চাপ দিচ্ছে। এমনকি ইউরোপে অবৈধ বাংলাদেশিদের নাগরিকত্ব যাচাইয়ে বাংলাদেশ দেরি করলে তাদের পাঠিয়ে দেওয়ারও হুমকি দিয়ে আসছিল। কিন্তু শুক্রবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের সম্পাদিত নতুন চুক্তিটির কারণে অবৈধভাবে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের এবার ফিরতেই হচ্ছে।

গত বছরের এপ্রিলে ঢাকা সফরের সময় ইইউ প্রতিনিধিদল ইউরোপে ৮০ হাজার অবৈধ বাংলাদেশি থাকার কথা বলেছিল। ইউরোপীয় কমিশনের পরিসংখ্যান দপ্তর ইউরোস্ট্যাটের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০০৮ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আট বছরে ৯৩ হাজার ৪৩৫ জন বাংলাদেশি ইউরোপের দেশগুলোতে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে।

অভিবাসীদের নিয়ে কাজ করা একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা জানান, ইউরোপ থেকে অবৈধদের যদি ফেরত পাঠাতেই হয় তবে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেই পাঠাতে হবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের উচিত, ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে জোরালো অবস্থান নেওয়া। তা না হলে তাদের পরিবারগুলোই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

 

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!