বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভারতের জাতীয় সংগীত গাওয়া ঘিরে বিতর্ক

ঢাকা: বাংলাদেশের মাটিতে একটি অনুষ্ঠানে গাওয়া হল ভারতের জাতীয় সংগীত। অনুষ্ঠান মঞ্চে লাগানো ব্যানারে বড় করে স্থান দেওয়া হল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। একই সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ স্থান দেওয়া হল ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীকে।

ঘটনাটি বাংলাদেশের চাঁদপুর জেলার ফারাক্কাবাদ এলাকায়। গত শুক্রবার ফারাক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজের একটি পাঁচতলা ভবনের উদ্বোধন হয়। ওই ভবনের নাম রাখা হয়েছে মহাত্মা গান্ধী ভবন। কলেজের ওই নতুন ভবনের উদ্বোধন করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত হর্ষবর্ধন শ্রিংলা।

ভারতের সরকারি সংস্থা মহাত্মা গান্ধী ফাউন্ডেশন ওই ভবন নির্মাণের সম্পূর্ণ খরচ দিয়েছে। ২০১৭ সালে ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশ সফর করেন। সেই সময়েই ফারাক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজের এই ভবন নির্মাণের কথা ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে খরচ বাবদ বাংলাদেশি মুদ্রায় এক কোটি আট লক্ষ টাকাও বরাদ্দ করেন।

শুক্রবার সেই ভবনের উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই গুরুত্ব পেয়েছে ভারত। অনুষ্ঠান মঞ্চের ব্যানারে বাঁ দিকে ছিল বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি। বাঁ দিকেই উপরের দিকে ছিল বঙ্গবন্ধু তথা মুজিবর রহমানের ছবি। একইরকমভাবে ডান দিকে ছিল ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং জাতির জনকের ছবি। অনুষ্ঠানে ভারতের জাতীয় সংগীতও গাওয়া হয়।

ভারতকে এত গুরুত্ব দেওয়ায় চটে গিয়েছে ওই দেশের অনেক মানুষ। তাদের অভিযোগ, বাংলাদেশের অনুষ্ঠানে কেন ভারতের জাতীয় সংগীত গাওয়া হবে? একই সঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে অনুষ্ঠান মঞ্চে নরেন্দ্র মোদী এবং মহাত্মা গান্ধীর ছবি ব্যবহার করা নিয়েও। সমালোচকেরা এর জন্য কাঠগড়ায় তুলেছে শাসক আওয়ামী লিগ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। একই সঙ্গে ফারাক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারম্যান সুজিত রায় নন্দীকেও নিশানা করেছে সমালোচকেরা।

এই বিতর্কের মধ্যে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ভারতের সাংসদ তথা বিজেপি নেতা সুব্রহ্মণ্যম স্বামীকে। কয়েক দিন আগে তিনি ত্রিপুরায় গিয়ে বাংলাদেশ দখলের হুমকি দিয়েছিলেন। সেই রেশ না কাটতেই চাঁদপুরে ফারাক্কাবাদ ডিগ্রি কলেজের অনুষ্ঠানে ভারতকে গুরুত্ব দেওয়ার যেন আগুনে ঘি পড়েছে। “চাঁদপুর কী তাহলে ভারতের অংশ হয়ে গেল?” এই প্রশ্নও করেছে অনেক সমালোচক।

যদিও এই বিতর্ক সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ প্রণোদিত বলে দাবি করেছেন কলেজ কর্তৃপক্ষ। তাঁদের দাবি, “ভারতের আর্থিক সাহায্যে নির্মিত ভবনের উদ্বোধন করেছেন ভারতের রাষ্ট্রদূত। সেই অনুষ্ঠানে ভারতের জাতীয় সংগীত গাওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।” একই সঙ্গে তাঁরা আরও জানিয়েছেন যে রাষ্ট্র সংঘে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত বাজানো হয়েছিল। তাহলে কী সেটা বাংলাদেশের হয়ে গেল। কলকাতায় বঙ্গবন্ধু ভবনের উদ্বোধনের সময় বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত বাজানো হয়ে থকে বলেও দাবি করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!