বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ “মহাকাশ জয়” নাকি আকাশে “অশ্বডিম্ব প্রেরণ”? শিবলী সোহায়েল

জন্মভূমির যে কোন অর্জনেই সবাই খুশি হবে, উচ্ছ্বসিত হবে সেটাই স্বাভাবিক।

বাংলাদেশের মত দেশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ তো বিশাল একটা ঘটনা।

তাহলে এই ব্যাপারে কেন কিছু লোক গর্বে-আনন্দে ভাসছে আর অন্যরা কেন বলছে, “আকাশে অশ্বডিম্ব প্রেরণ”?

এই সম্পূর্ণ বিপরীত প্রতিক্রিয়া কি শুধুমাত্র পলিটিকাল কারণে হচ্ছে?
.

বিষয়টা বুঝবার জন্য দুটো ঘটনার দিকে তাকাবো:

১। আমাদের ক্রিকেট দল যখন জিতে আসে তখন কিন্তু সবাই আনন্দে চিৎকার করতে করতে গলা ভেঙ্গে ফেলে। আমার ফেসবুকে কানেক্টেড আছে বিভিন্ন ধরনের মানুষ, কেউ আওয়ামীলীগ সমর্থন করে কেউ বিএনপি, কেউ জামাত, কেউ শাহাবাগি, কেউ হেফাজত, কেউ নাস্তিক, কেউ আস্তিক, কেউ হিন্দু, কেউ মুসলিম, কেউ ক্রিশ্চেন। প্রত্যেককেই দেখেছি দেশের জয়ে আনন্দে উচ্ছ্বসিত হতে। দেখেছি ২০১৫ সালের ওয়ার্ল্ড কাপে কিভাবে সবাই বাংলাদেশের জার্সি পরে, ফ্ল্যাগ হাতে নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাথে অস্ট্রেলিয়ার শহরে শহরে দৌড়ে বেড়াল। একেকজন ফিরে আসলো গলা ভাঙ্গা, সর্দি-কাশী বা জ্বর নিয়ে কিন্তু কারো মধ্যে উচ্ছ্বাস আর ভালবাসার কোন কমতি ছিলোনা।

২। এবার আরেকটা ঘটনার দিকে তাকাই। অনেকেরই হয়তো মনে আছে ১৯৮৮-৮৯ সালে বাংলাদেশ বিকেএসপির “ডানা” আর “গোথিয়া” কাপ বিজয়ের কথা। তখন এরশাদ ক্ষমতায়। রাজনৈতিক ভাবে এরশাদকে কেউ সমর্থন না করলেও এই বিজয়ের কথা প্রথমে যেভাবে প্রচার করা হয়েছিল তাতে করে আনন্দে পুরো দেশ মেতে উঠেছিল। আমার খালু তো তখনই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলো যে তার ছেলেকে বিকেএসপি-তে ভর্তি করাবে। তবে দুদিন পরেই ঘোর কাটল। সবাই টের পেয়ে গেল এরশাদ একটা তিলকে তাল বানিয়ে প্রচার করেছে, শুরু হল সমালোচনা।
.

– এরকম আরও ঘটনা উল্লেখ করা যেতে পারে।ধরেন যমুনা সেতুর কথাই, কোন সমালোচনা হয়েছে? আর এখন পদ্মা সেতু?? সে কথায় নাই বা গেলাম। বিষয়টা হচ্ছে, দেশের অর্জনে মানুষ আনন্দ করবে নাকি সমালোচনা করবে তা রাজনীতির চাইতেও অর্জনটা আসলে কতটা এবং কি রকম তার উপর নির্ভর করে।
.

এখানে আমি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের ঘটনাকে “ডানা-গোথিয়া” কাপ বিজয়ের সাথে তুলনা করবোনা। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ নিঃসন্দেহে এর চাইতে অনেক বড় ঘটনা। “ডানা” আর “গোথিয়া” কাপ বিজয়ের সাথে তুলনা করা যেতে পারে কয়েকদিন আগের “মধ্যম আয়ের দেশ” উৎসবের সাথে, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের সাথে না।

তাহলে স্যাটেলাইট নিয়ে এই বিপরীত প্রতিক্রিয়া কেন হচ্ছে?

আমার মনে হয় এর কারণ মানুষ এখনও নিশ্চিত হতে পারছেনা যে জাতীর ঘাড়ে এই বিশাল ব্যায়ের বোঝা চাপিয়ে সরকার কি দেশের জন্য সুফল বয়ে আনছে নাকি হীরক রাজা তার শখ পূরণ করছে। সন্দেহ আরও বাড়ছে যখন সমালোচনার সঠিক জবাব দেওয়ার বদলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের “মেকিং এমেরিকা গ্রেট এগেইন” -এর মত বড় বড় কথা বলা হচ্ছে আর সমালোচকদেরকে রাজাকার বলে গালি গালাজ করা হচ্ছে। সমালোচনাগুলো পড়ে এবং সরকারের কথা শুনে মোটেও মনে হচ্ছে না প্রোজেক্টের কষ্ট-বেনিফিট এনালাইসিস, রেন্ট-বাই অপশন এবং SWOT এনালাইসিস সঠিক ভাবে করা হয়েছে।

আমি এবিষয়ে এক্সপার্ট না তবে বিজনেস ফিসিবিলিটি সম্পর্কে যা ধারনা আছে তা থেকে কয়েকটি প্রশ্ন এখানে তুলে ধরছি আর দুয়েকটি সমালোচনাও কমেন্টে দিয়ে দিচ্ছি। আশা করছি যারা আজ আনন্দে মাতোয়ারা তারা গালিগালাজ না করে এই প্রশ্নগুলোর জবাব সরকারকে মানুষের সামনে তুলে ধরতে বলবেন। প্রশ্নের জবাবগুলো সঠিক হলে সবাই আপনাদের সাথে আনন্দ মিছিলে যোগ দেবে।
.

প্রশ্নগুলো হচ্ছে:

১। প্রজেক্টের ইকোনমিক লাইফ ১৫ বছর, ঠিক কত বছরে এটা ব্রেক-ইভেনে যাচ্ছে? কিভাবে যাচ্ছে? বা আদৌ যাচ্ছে কি?
.

২। সেলস রেভেনিউ –এর স্বপ্নের লিস্টে অনেক কিছুই দেখা যাচ্ছে। কিন্তু কোন সেলস কন্ট্রাক্ট কি এখন পর্যন্ত কনফার্ম হয়েছে? মায়ানমার কিন্তু ২০১৯ সালে স্যাটেলাইট পাঠাবে, তবে তার সেলস কন্ট্রাক্টগুলো এখনই করে ফেলেছে। কমেন্টে বিস্তারিত দেখুন। এখানে আরও দেখা যাচ্ছে পাকিস্তানও তাদের স্যাটেলাইট পাঠানোর আগেই প্রায় ৬০% সেলস কন্ট্রাক্ট করে ফেলেছিল। এটাই স্বাভাবিক, সব দেশ, সব কোম্পানিই তাই করার কথা। আপনারা কি একটি এমওইউ করেছেন এখন পর্যন্ত?
.

৩। দেশের স্যাটেলাইট টেলিভিশনগুলোর মধ্য থেকে কতগুলো চ্যানেল এই সার্ভিস নেবার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে? সরকারের বি-চ্যানেল, ৭১ টিভির কথা শুনে এব্যাপারে সবার শঙ্কা আরও বেড়ে যাচ্ছে।

৪। অরবিটাল স্লট ৮৬-৮৮ এমনকি ১০২ ও পাওয়া যায়নি বলে ১১৯.১ স্লটটি নেওয়া হয়েছে। এখন যেই সার্ভিস এবং বেনিফিটের স্বপ্ন দেখানো হচ্ছে সেটা বাংলাদেশ ১১৯.১ স্লটটি থেকে কিভাবে পাবে?
.

৫। এই স্যাটেলাইট কি বর্তমান ইন্টারনেট কানেকশনের চাইতে দ্রুত গতির এবং কম মূল্যে সার্ভিস দিতে পারবে?

দোওয়া করছি, এই প্রোজেক্ট যেন সফল হয় এবং শুধুমাত্র কারও শখ, মানুষের টাকা মেরে খাওয়ার ইচ্ছা বা ইতিহাসে কারও নাম লেখাবার জন্যে এই নিষ্পেষিত জাতীর ঘাড়ে আরেকটা বোঝা না বাড়ায়।
.

(আগে পড়ে না থাকলে কমেন্টের সমালোচনা গুলো পড়ে নিতে পারেন। আর দেখে নিতে পারেন – ২০১২ সালে প্রকাশিত নিউ এজের রিপোর্টটা, এখানে উঠে এসেছে পদ্মা সেতুর মতই আরেকটি ভয়াবহ দুর্নিতির বিষয়)

1.বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট আকাশে সোনার অশ্বডিম্ব প্রেরন –

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট আকাশে সোনার অশ্বডিম্ব প্রেরন -১।=============বিভিন্ন জনের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অতিশয়োক্তি…

Posted by Zia Hassan on Thursday, May 10, 2018

প্রকাশিত নিউ এজের রিপোর্ট: http://www.newagebd.com/detail.php?date=2012-05-23&nid=11211

 

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!