ফ্রান্স আওয়ামী লীগ: অনুষ্ঠান পরিচালনায় ব্যর্থতায় নেতা কর্মীদের তোপের মুখে লিটন খান

ফ্রান্স আওয়ামী লীগ: অনুষ্ঠান পরিচালনায় ব্যর্থতায় নেতা কর্মীদের তোপের মুখে লিটন খান

 

অনুষ্ঠান পরিচালনায় ব্যর্থতায় নেতা কর্মীদের তোপের মুখে লিটন খান

সাধারন সম্পাদকের অব্যবস্থাপনা ও অদক্ষতার কারনে ফ্রান্স আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের অনুষ্টান পরিচালনায় নেতা কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন  লিটন খান।

গত রোববার ফ্রান্স আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের অনুষ্টানে প্রথম থেকেই নিজের ব্যাক্তিগত কর্মি শুভাকাংখীদের মুল্যায়নের মাধ্যমে অনুষ্টান শুরু করেন লিটন খান।

অনুষ্টান পরিচালনায় তিনি ফ্রান্স আওয়ামীলীগের নেতাদের মুল্যায়ন না করে নতুন কিছু ব্যাক্তিদের প্রথম থেকেই পরিচয় করিয়ে দিতে ব্যস্ত থাকেন।তার কৌশল ছিল নতুন ব্যাক্তিদের পরিচয়ের মাধ্যমে নিজের হারিয়ে যাওয়া কর্মী ঘাটতি পুরন করে নতুন কর্মী সৃষ্টি করা এবং সময়ক্ষেপন করে শেষ পর্যন্ত যারা তাকে পছন্দ করেননা তাদেরকে বক্তব্য দেবার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা।পরিচয় পর্বে যাদের কে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয় তাদের অনেকেই একসময় প্রকাশ্যে বিএনপি জামাতের সাথে সম্পৃক্ত ছিলো।

এরা বিগত দিনগুলোতে ফ্রান্স আওয়ামীলীগের উভয় গ্রুপের কোন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন নাই।

অনুষ্টানের শেষ পর্যায়ে সাংগঠনিক সম্পাদক‚ যুগ্ম সম্পাদক‚ সহ সভাপতি সহ অনেককে বক্তব্য দেয়ার সুযোগ না দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ করতে চাইলে অনুষ্ঠানে আগত নেতা কর্মিরা প্রতিবাদে হল থেকে বেরিয়ে গেলে অনুষ্টান হল শ্রোতা শুন্য হয়ে যায় তখন সিনিয়র নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কিছু সংখ্যক নেতা কর্মি হলে ফিরে আসলেও অধিকাংশ নেতা কর্মি তার বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হন বলে যানা যায়।

অনুষ্ঠানে শেষ পর্যায়ে সিনিয়র নেতৃবৃন্দ নেতা কর্মিদের আগামীতে এই অনিয়ম হবে না বলে জানান।পাশাপাশি তারা লিটন খানকে আগামী ৬ মাসের মধ্যে অনুষ্টান পরিচালনা শিখার পরামর্শ দেন।

এ সময় অনেকেই মন্তব্য করেন লিটন খান কর্মিশুন্য হয়ে পাগলের প্রলাপ বকছেন।

লিটনের অব্যবস্থাপনার নমুনা হিসেবে দেখা যায়, ৯০০ ইউরো দিয়ে হল বুকিং করলেও মাত্র ৫০ ইউরো দিয়ে একটি নতুন ব্যানার তৈরি না করে পুরানো একটি ব্যানারে কাগজ লাগিয়ে জোড়াতালি দিয়ে দায়সারাভাবে একটি ব্যানার বানানো হয়।

অভিযোগ পাওয়া যায়, অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে আগত নেতা কর্মিদের কাছ থেকে চাদাবাজী করে হলের ভাড়া পরিশোধ করেন লিটন খান। এই অনুষ্টান কে কেন্দ্র করে নেতা কর্মীদের মধ্য চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে বলে জানা যায়।

অনেকেই লিটন খানের এরকম ব্যক্তিত্বহীন আচরনের কারনে তার উপর ক্ষিপ্ত হয়েছেন। যে কোন সময় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে বলে মনে ফ্রান্স আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীবৃন্দ।Source:eurobarta24.com

 

28

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!