ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাই

আব্দুল মুমিত( রোমেল) প্যারিস, ফ্রান্স

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে নিঃস্ব হচ্ছেন বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা । প্রতিনিয়ত একের পর এক চুরি ডাকাতি এবং ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে কিন্তু এ থেকে মুক্তি পাচ্ছে না প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা । প্রতিদিনের মতো শুক্রবার সকাল 9 টায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ী নাঈমুল ইসলাম চৌধুরী শাকিল তার নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান (  মানি ট্রান্সফার )ওপেন করেন। 9:10 এ সময় তার সহযোগী শাহীদ ইসলাম নিশুকে ওয়েস্টান ইউনিয়নের (6,810€ টাকা জমা দেয়ার জন্য তিনি তুলে দেন। নিশু টাকাগুলো পকেটে নিয়ে বের হন দোকান থেকে 10 মিনিট দূরত্বে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের অফিসে জমা দেয়ার জন্য, (89 Rue Robespierre, 93170 Bagnolet )দোকান থেকে 5 মিনিট এর দূরত্ব অতিক্রম করে একটি মেইন রাস্তার ফুটপাত দিয়ে নিশু টাকাগুলো পকেটে নিয়ে হেটে যাচ্ছিলেন এমন সময় পিছন থেকে একজন এরাবিক (22) এবং একজন আফ্রিকান (20) বংশোদ্ভূত ছিনতাইকারী তাকে আক্রমন করে প্রথমে তার চোখের মধ্যে স্প্রে ছুঁড়ে দেয় এবং সাথে সাথে লাথি মেরে তাকে পাকা রাস্তার মধ্যে ফেলে দেয় । একজন তার মাথার মধ্যে পিস্তল ঠেকিয়ে রাখে এবং অন্যজন তার পকেট থেকে টাকাগুলো সহ মানিব্যাগ এবং মোবাইলটি বের করে নেয়। নিশু বলছিলেন ঠিক ওই মুহূর্তে তিনি এতটাই ভয়ে আতঙ্কিত ছিলেন যে তার প্রাণনাশের আশঙ্কা করেছিলেন এবং চোখে কিছু দেখতে পাচ্ছিলেন না।ওই দুই ছিনতাইকারী তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ফুটবলের মত লাথি মেরে রাস্তার কিনারে ফেলে রেখে টাকা মানিব্যাগ এবং মোবাইলটি নিয়ে পালিয়ে যায়।আশেপাশে অনেক পথচারী ঘটনাটির দৃশ্য প্রত্যক্ষ ভাবে দেখলেও কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি। শাকিল অভিযোগ করেন 2017 সালের দিকে তার দোকানের সাটার টি কেটে রাতের গভীরে আফ্রিকান বংশোদ্ভূত ডাকাতরা দোকানের ভিতরে প্রবেশ করে এবং কেশ 22 হাজার ইউরো সহ দোকানের মালামাল চুরি করে নিয়ে পালিয়ে যায়। কিন্তু ,প্রশাসনের কাছ থেকে তিনি কোনো সহযোগিতা পাননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশী ব্যবসায়ী বলেন সিসি ক্যামেরায় ভিডিও ধারণ থাকার পরও পুলিশ ব্যর্থ হচ্ছে ছিনতাইকারী ডাকাত এবং সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করতে । উল্লেখ্য, গত কয়েক বছর ধরে প্যারিসে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যবসা-বাণিজ্য কিংবা রাস্তাঘাটে চলার পথে ছিনতাই এবং ভিনদেশিদের দ্বারা আক্রমণের শিকার হচ্ছেন। প্যারিসের কমিউনিটির ব্যক্তিরা এ নিয়ে প্যারিসের প্রশাসনের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ২২ মে 2019 প্রবাসীদের নিরাপত্তাবিষয়ক একটি সভা করেন। ওই সভায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আশ্বস্ত করেন যে বাংলাদেশী প্রবাসী ব্যবসায়ীদের তারা নিরাপত্তা জোরদার করবেন কিন্তু বাস্তবে তা আজও পরিলক্ষিত হয়নি । কমিউনিটি অনেক ব্যক্তিরা মনে করেন ফরাসি ভাষায় অনেকটা দুর্বল থাকার কারণে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা প্রশাসনকে বস্তুনিষ্ঠ তথ্য দিয়ে হেল্প করতে না পারার কারণে প্রশাসন থেকে তাদের সিকিউরিটির ব্যাপারটা এখনো পর্যন্ত নিশ্চিত করা হয়নি ।যার ফলশ্রুতিতে একের পর এক ব্যবসায়ী সন্ত্রাসী হামলা সহ চুরি-ডাকাতির মত ঘটনার শিকার হচ্ছেন।ভুক্তভোগী নিশুর সাথে কথা বলে জানা যায় তিনি বলেন তিনি যে প্রাণে বেঁচেছেন এটা হয়তো বা আল্লাহর অশেষ রহমতে কারণ এই সব ছিনতাইকারীরা অনেক সময় ছুরিকাঘাত করে বা গুলি করে পালিয়ে যায় সবকিছু নিয়ে।

আব্দুল মুমিত( রোমেল) প্যারিস, ফ্রান্স

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!