দিনাজপুরের ঐতিহাসিক বড় ময়দানে দেশের সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত।

দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত। বৃহৎ এই ঈদের জামাতে ৬ লাখ মুসল্লি একসাথে নামাজ আদায় করেছে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

দিনাজপুরের ঐতিহাসিক গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে শনিবার সকাল ৯টা ২০ মিনিটে এই সর্ববৃহৎ ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এখানে ঈমামতি করেন দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল জামে মসজিদের ঈমাম মাওলানা সামশুল আলম কাশেমী।

বৃহৎ এই ঈদের জামায়াতে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম, জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, জেলা প্রশাসক ড. আবু নঈম মুহাম্মদ আবদুছ ছবুর, পুলিশ সুপার হামিদুল আলমসহ সর্বস্তরের মুসল্লিরা অংশ নেন।

দিনাজপুর ছাড়াও বগুড়া, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও এবং পঞ্চগড় জেলাসহ আশপাশের জেলার মুসল্লিরা নামাজ আদায় করতে আসেন। বৃহৎ এই জামাতে নামাজ আদায় করতে পেরে খুশী আশপাশের ও দূরদূরান্ত থেকে আগত মুসল্লিরা।

বড় এই ঈদগাহ ময়দানে নামাজ আদায়ে মুসল্লিদের যাতে করে কোনো ধরনের সমস্যায় না পড়তে হয় সেজন্য অস্থায়ী ওজু, পানি, টয়লেট ব্যবস্থা করা হয়। জঙ্গি হামলাসহ কোনো ধরনের নাশকতা না হয় সেজন্য কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

র্যা ব, বিজিবি, পুলিশ, আনসারসহ সব ধরনের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন ছিল। একইসাথে গোয়েন্দা নজরদারিসহ সিসি ক্যামেরাও স্থাপন করা হয়।

দেশের মধ্যে আয়তনে বড় প্রায় ২২ একর বিশাল এই মাঠে যেন গত বছরের তুলনায় আরো বেশি মানুষ নামাজ আদায় করতে পারে তারই প্রস্তুতি হিসেবে সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ৫২ গম্বুজের ঈদগাহ মিনার তৈরিতে খরচ হয়েছে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা। শোলাকিয়ার চেয়ে বড় জামাতের আয়োজন করতে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ঈদগাহ মাঠটি ঐতিহাসিক নিদর্শন ও মনোরম কৃতির সৌন্দর্য ও নান্দনিক হিসেবে নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়।

ঈদগাহ মাঠের মিনারের প্রথম গম্বুজ অর্থাৎ মেহেরাব (যেখানে ইমাম দাঁড়ান) তার উচ্চতা ৪৭ ফিট। এর সাথে রয়েছে আরো ৪৯টি গম্বুজ।

এছাড়া ৫১৬ ফিট লম্বায় ৩২টি আর্চ নির্মাণ করা হয়। পুরো মিনার সিরামিক্স দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। ঈদগাহ মাঠের দুধারে করা হয়েছে ওজুর ব্যবস্থা। প্রতিটি গম্বুজ ও মিনারে রয়েছে বৈদ্যুতিক লাইটিং। রাত হলে ঈদগাহ মিনার আলোকিত হয়ে উঠে।

ঐতিহাসিক গোড়-এ শহীদ ময়দানের পশ্চিম দিকে প্রায় অর্ধেক জায়গাজুড়ে প্রতিষ্ঠিত এই ঈদগাহ্ মিনারটির পাদদেশে গত বছরে ঈদের ২টি নামাজ আদায় হয়েছে। এবার নিয়ে ৩টি জামাত অনুষ্ঠিত হলো।

দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হামিদুল আলম জানান, যাতে করে কোনো ধরনের জঙ্গি হামলা কিংবা নাশকতার ঘটনা না ঘটে সেজন্য নামাজ আদায়ের পূর্ব দিন থেকেই র্যা ব, বিজিবি, পুলিশ এবং আনসার বাহিনীর সদস্যরা মোতায়েন ছিল। স্থাপন করা হয়েছিল অস্থায়ী সিসি ক্যামেরা।

বৃহৎ এই জামাতের মূল উদ্যোক্তা জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম জানান, ঈদুল ফিতরের এই জামাতে প্রায় ৬ লাখ মুসল্লির সমাগম ঘটেছে। ঈদের জামাত সফল করার জন্য বিভিন্ন স্থান থেকে আগত মুসল্লিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

poriborton logoএটি/বিএইচ/

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!