তুরস্কের সংকটে পাশে থাকার ঘোষণা কাতারের, ডলারের ব্যপক দরপতন!

 

কাতারের আমির গতকাল তুরস্কে সফর করে চলমান সংকট মোকাবেলায় পাশে থাকার কথা ঘোষণা করে। প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের সাথে প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টার মিটিং শেষে ১৫ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। এদিকে গতকাল সকাল থেকে ডলারের বিপরীতে লিরা শক্তিশালী হওয়া শুরু করে। গত সপ্তাহের শেষে যেখানে প্রতি ডলার ৭.২২ লিরা পর্যন্ত দাম বেড়েছিল সেটা গতকাল ৫.৮৭ পর্যন্ত নেমে যায়। কাতারের ঘোষণার পরই ডলারের ব্যাপক এই পতন এবং ৬ লিরার নিচে এসে স্ট্যাবল হয়। এই মুহুর্তে ডলার ৫.৭৭ লিরাতে বিক্রি হচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে দ্রুতই আরো দাম কমবে। যদিও আমেরিকা থেকে নতুন কোন পদক্ষেপ আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

“বন্ধু চিনা যায় বিপদের কালে”। কাতারের এই সহযোগীতা তুরস্কের সবচেয়ে বিশ্বস্থ বন্ধু হিসেবে যথার্থ ভূমিকা হিসেবে উল্লেখ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। পাশাপাশি রাশিয়া, ইরান বানিজ্যে ডলারের বিপরীতে বিকল্প মুদ্রা প্রচলনের ব্যপারে একমত হয়েছে। এখন তিন দেশ অপেক্ষা করছে চীনের সিদ্ধান্তের দিকে।

তুরস্কের এই সংকটে কাতারের পাশাপাশি রাশিয়া ও ইরান ছাড়াও মিশর, জর্ডান, ইরাক, আজারবাইজান, পাকিস্তান ইত্যাদি মুসলিম দেশ এবং জার্মানী, ফ্রান্স ও ইটালির মতো ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছে কিংবা আমেরিকার এই জুলুমের নিন্দা জানিয়েছে।

Image may contain: 2 people, people smiling, people standing and suit

আরটিএনএন
আঙ্কারা: তুরস্কের ওপর মার্কিন প্রশাসনের চাপ সৃষ্টি সত্ত্বেও দেশটিতে দেড় হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে কাতার। বুধবার তুরস্ক সফরে পৌঁছে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের সঙ্গে একান্ত বৈঠকে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আলে সানি এ ঘোষণা দিয়েছেন।

তুরস্কের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরো জোরদার করার লক্ষ্য নিয়ে তিনি এ সফর করছেন। বৈঠকে তারা দু দেশের বর্তমান কৌশলগত সম্পর্ক এবং তা আরো গভীর করার উপায় নিয়ে আলোচনা করেন। এ বৈঠকে শেখ তামিম জানান, তার দেশ তুরস্কের মুদ্রা বাজার ও ব্যাংকিং খাতে দেড় হাজার কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যখন তুরস্কের পণ্যের ওপর নানারকম বাড়তি শূল্ক আরোপের পদক্ষেপ নিয়েছেন এবং আঙ্কারার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন তখন কাতারি আমির তুরস্কের প্রতি এই সমর্থন দিলেন।

এরইমধ্যে তুরস্কও মার্কিন কিছু পণ্যের ওপর বাড়িত শুল্ক বসানোর ঘোষণা দিয়েছে। মার্কিন পদক্ষেপে তুর্কি মুদ্রা লিরার মান শতকরা অন্তত ২০ ভাগ পড়ে গেছে।

এমতাবস্থায় তুর্কি অর্থনীতি চাঙ্গা করতে তাদের মিত্ররা নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছে। পাকিস্তানও এরদোগানের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে।

Image may contain: 1 person, standing, suit and wedding
Image may contain: 1 person, sitting, table and indoor

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!