‘জয় শ্রীরাম’ নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য অমর্ত্য সেনের

পরিতোষ পাল

গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি আশাতিরিক্ত ফল করার পর থেকেই পশ্চিমবঙ্গে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দিয়ে রাজ্যের পরিবেশকে বিষিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে বলে নানা মহল থেকে অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। এই স্লোগান যে বাংলার সংস্কৃতি নয়-  সে কথা জোরের সঙ্গে বলছেন তৃণমূল কংগ্রেস নেতারা। তবে এবার এই জয় শ্রীরাম স্লোগান নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছেন নোবেল জয়ী অমর্ত্য সেন। শুক্রবার কলকাতায় দুটি অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে জয় শ্রীরাম স্লোগান প্রসঙ্গে অমর্ত্য সেন বলেছেন, বঙ্গ সংস্কৃতিতে কোনও কালেই এ ধরনের স্লোগানের কোনও জায়গা ছিল না। বাংলায় এ সব ‘ইদানীংকালে’র আমদানি। নতুন এই সংস্কৃতি আমদানির পিছনে বিভেদের রাজনীতি কাজ করছে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। বঙ্গ সংস্কৃতি এবং হিন্দুত্ববাদের ‘আস্ফালন’ নিয়ে এদিন অমর্ত্য সেন সরব হয়েছেন। তিনি বলেছেন, যখন শুনি কাউকে রিকসা থেকে নামিয়ে কিছু একটা বুলি আওড়াতে বলা হচ্ছে এবং তিনি বলেননি বলে মাথায় লাঠি মারা হচ্ছে, তখন শঙ্কা হয়।

বিভিন্ন জাত, বিভিন্ন ধর্ম, বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে পার্থক্য আমরা রাখতে দিতে চাই না। ইদানীং এটা বেড়েছে। তিনি সরাসরি প্রশ্ন তুলেছেন, ধর্মীয় ভেদাভেদ থেকে হিংসা কেন? ভারতীয় সংবিধানে সমস্ত ধর্মাচরণের অধিকার দেওয়া হয়েছে। এদিন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তাঁর স্মৃতিতে কলকাতা’ নিয়ে বলতে গিয়েও টেনে এনেছেন ধর্মীয় বিভেদের বিষয়টি। তিনি বলেছেন, আজ যখন শুনি বিশেষ বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষ ভীত, শঙ্কিত হয়ে রাস্তায় বেরোন এই শহরে, তখন আমার গর্বের শহরকে চিনতে পারি না। এ সব নিয়ে প্রশ্ন তোলা দরকার। তিনি স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে, একসময় হিন্দু মহাসভা (বিজেপির পূর্বসুরী) পশ্চিমবঙ্গে বিভেদের বাতাবরণ তৈরির চেষ্টা করেছিল। এখন বিজেপি ঠিক সেই একই উদ্দেশ্যে বাংলায় ‘জয় শ্রীরাম’ সংস্কৃতির আমদানি ঘটানোর চেষ্টা করছে। নেবেলজয়ী এই অর্থনীতিবিদ স্পষ্ট করেই বলেছেন, জয় শ্রীরাম, রাম নবমী, এ সব কোনও কিছুর সঙ্গেই বাঙালির কোনও যোগ নেই। এখানে দুর্গাপুজোই হয়। বিজেপির তথাকথিত গেরুয়া সংস্কৃতির বিরুদ্ধে অমর্ত্য সেন প্রথম থেকেই মুখ খুলে চলেছেন। এমনকি নালন্দা বিশ্বাবিদ্যালয়ের দায়িত্ব থেকেও সরে এসেছিলেন।

সূত্র :মানবজমিন,

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!