নোটিশের জবাব:আক্রমণাত্মক ভাষায় কৈফিয়ত তলবে অপমানিত বোধ করছি:হাফিজ বীরবিক্রম

দলের কাছ থেকে পাওয়া কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিলেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। চিঠির জবাব দেয়ার দিনেই সকালে সংবাদ সম্মেলনে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন। বলেন, বিএনপি’র চেয়ারপাসন বেগম খালেদা জিয়া তার নেতা, পরবর্তীতে বিএনপিতে যিনিই নেতা হবেন তাকেই দলের নেতা মানবেন। তবে যে প্রক্রিয়ায় এবং মাধ্যমে তাকে শোকজ করা হয়েছে তাতে তিনি অসম্মানবোধ করেছেন। শোকজের জবাবেও মেজর অব. হাফিজ অনেকটা কড়া বক্তব্য দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, একজন যুদ্ধাহত, খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমি বিজয়ের মাসে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে অসৌজন্যমূলক ভাষায় অসত্য অভিযোগ সংবলিত কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়ে হতবাক হয়েছি। আমার বিনীত অনুরোধ আমার বক্তব্য স্থায়ী কমিটির সদস্যের সামনে উপস্থাপন করা হোক। বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আমাকে যদি দোষী সাব্যস্ত করা হয়, আমি যে কোনো শাস্তি মাথা পেতে নিতে প্রস্তুত আছি।

আমি দলীয় নেতৃত্বের প্রতি সর্বদাই শ্রদ্ধা পোষণ করি।
বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষরে যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে, তাতে ‘অনেক ভুল’ রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি বিগত ২৯ বছর ধরে বিএনপি’র রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট, আমার যোগদানের তারিখ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ পাওয়ার তারিখ, আমার নামের বানানসহ অনেক ভুলই রিজভীর স্বাক্ষরিত চিঠিতে দৃশ্যমান। আমি ২২ বছর ধরে দলের অন্যতম ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছি। দলের ভাইস চেয়ারম্যানকে একজন যুগ্ম মহাসচিব (আদিষ্ট না হয়েও) এমন কঠিন, আক্রমণাত্মক ভাষায় কৈফিয়ত তলব করায় অত্যন্ত অপমানিত বোধ করছি। এখানে প্রটোকল ও সৌজন্যতার ব্যত্যয় ঘটেছে। ব্যক্তি রুহুল কবির রিজভী একজন ভদ্র, নিষ্ঠাবান ও ত্যাগী নেতা, তার সঙ্গে আমার সুসম্পর্ক রয়েছে। তার কাছ থেকে এ ধরনের চিঠি আশা করিনি।

হাফিজ বলেন, আমার সামরিক বাহিনীর বন্ধুরা যাদের সঙ্গে চাকরি-বাকরি করেছি, তারা সবাই এবং আমার ব্যক্তিগত বন্ধুরা যারা রাজনীতি করে না, তারা সবাই বলে যে, আপনি আজকেই পদত্যাগ করেন। আমি চিন্তাও করেছিলাম। আমার প্রিয় নেতা-কর্মীরা সেই এখান থেকে আড়াইশ’ মাইল দূরে নদী পার হয়ে লঞ্চে, নৌকায়, মেঘনা নদীর পাড় থেকে এখানে এসে অনুরোধ করেছে- আপনি পদত্যাগ করবেন না, অবসর নেবেন না। তাদের অনুরোধে আজকে আমি পদত্যাগ করলাম না। আমি দেখতে চাই, এই আমার ব্যাখ্যা তাদের (নেতাদের) কাছে সন্তোষজনক হয় কিনা। তারপরে আমি পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবো।

দলের কাউন্সিল দাবি করে হাফিজ বলেন, বিএনপি’র একজন নগণ্য কর্মী হিসেবে কয়েকটি সুপারিশ পেশ করতে চাই। ২০২১ সালের মার্চ মাসের মধ্যেই দলের জাতীয় কাউন্সিল আহ্বান করা হোক। কাউন্সিলে ভোটের মাধ্যমে দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটি, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি এবং সহযোগী সংগঠনের কমিটি গঠনের দাবি জানান তিনি। দলের বিভিন্ন পর্যায়ে কমিটি বাণিজ্য এবং মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ উঠে আসায় তার তদন্তও দাবি করেন হাফিজ।
বিএনপি’র এই সিনিয়র নেতা বলেন, সমপ্রতি আমার নির্বাচনী এলাকায় ছাত্রদলের কমিটি কেন্দ্রীয় নেতারা ঢাকায় বসে গঠন করেছেন। আহ্বায়ককেই আমি চিনি না। ছাত্রলীগের কর্মীরাও এ কমিটিতে স্থান পেয়েছে। আমার সুপারিশ বিবেচনা করা হয়নি। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও মহাসচিবকে চিঠি দিয়ে কোনো উত্তর পাইনি।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে হাফিজ বলেন, বিএনপি নেতা-কর্মীদের চিন্তা করতে বলি, দেশের জনপ্রিয় দল বিএনপি কেন আজকে ক্ষমতার বাইরে? কারা এর জন্য দায়ী? চিন্তা করেন, মুক ও বধির না হয়ে চিন্তা করেন। দলকে ভালোর জন্য কনট্রিবিউট করেন। দলকে সাজেশন দেন, কী করা উচিত। কেবলমাত্র তোষামোদ করে দায়িত্ব শেষ করবেন না। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমার নেতা জিয়াউর রহমান বলে গিয়েছেন, দলের চেয়ে দেশ বড়। আমার কাছেও আমার দেশ সবচাইতে বড়।
দলের নেতাকর্মীদের আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে হাফিজ বলেন, এদেশে গণতন্ত্র আসুক আমি চাই। গণতন্ত্র ও সুশাসনের জন্য, মানবিক মর্যাদা পুনরুদ্ধারের জন্য, জনগণের ভোটাধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, বাক স্বাধীনতা ফিরে পাওয়ার জন্য এবং এই অবৈধ সরকারকে বিদায় করার জন্য যে কোনো সংগ্রামে আমি সব সময় প্রস্তুত থাকবো। আমি একজন ক্ষুদ্র রাজনৈতিক কর্মী। যদি বিএনপি’র নেতা-কর্মীরা বিশেষ করে ছাত্র- যুবকেরা রাজপথে নামে, কালকে এদলের ভবিষ্যৎ অত্যন্ত উজ্জ্বল।
তিনি বলেন, তারা রাজপথে নামে না কেন? অনেক চিন্তা করেছি। দলীয় নেতৃবৃন্দের উচিত এটা পর্যালোচনা করা যে, এত জনপ্রিয় দল বিএনপি ক্ষমতায় গেলে শতকরা ৮০টা ভোট পায়, কিন্তু রাস্তায় কেন ১০০ লোক নামে না। এটা চিন্তা করা উচিত। অনেক কর্মীকে আমিও জিজ্ঞাসা করেছি। তারা বলে যে, আমি যদি নামি, গুলিটা খাই আমার পরিবারকে কে দেখবে? আমরা লাভটা কী? আমি জীবন দেবো, অন্যদের সুবিধা হবে- এসব কারণে হয়তো নামে না। তবুও আমি বিএনপি’র সকল নেতা-কর্মীকে আহ্বান জানাব, আগামী দিনে সরকারবিরোধী আন্দোলনে ডাক দিলে, যেই ডাক দেয়, আপনারা এসে এই সরকারকে উৎখাত করবেন।
৫ পৃষ্ঠার জবাবে হাফিজ লিখেছেন, বিএনপি’র সর্বোচ্চ নেতৃবৃন্দকে উদ্দেশ্য করে কোনো অসম্মানজনক, অসৌজন্যমূলক বক্তব্য রাখিনি। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান সততা ও দেশপ্রেমের মূর্ত প্রতীক। আমি মুক্তিযুদ্ধে তার অধীনস্থ সেনা কর্মকর্তারূপে জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করেছি, সম্মুখ সমরে আহত হয়েছি। ১৪ই ডিসেম্বর তারিখে পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে সারাদিন মরণপণ যুদ্ধের পর জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে সিলেট শহর দখল করেছিলাম। ২০২০ সালের এইদিনেই আমার দল আমাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। আমাকে নোটিশ পাঠানোর আগে চিঠির বিষয়বস্তু ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে আমার কর্মীরা মর্মাহত হয়েছে।

অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছেন দাবি করে হাফিজ লিখেছেন, দলের চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অসম্মান করার কোনো প্রশ্নই ওঠে না। জিয়া পরিবারের কোনো সদস্যের প্রতি কখনোই কটূক্তি করিনি, ভবিষ্যতেও করবো না। রাজনীতি ছেড়ে দিলেও বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের আদর্শ হৃদয়ে লালন করবো।
ভোলার লালমোহন-তজুমদ্দিন আসনে ছয়বারের সংসদ সদস্য হাফিজ ২০০১ সালে খালেদা জিয়ার সরকারে মন্ত্রী ছিলেন। বীরবিক্রম খেতাবপ্রাপ্ত এই মুক্তিযোদ্ধা সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর। ফুটবলার হিসেবেও দেশে খ্যাতিমান।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!