কলকাতার নন্দলাল বোস গ্যালারিতে তিন দিন ধরে হয়ে গেল আর্টভার্স-এর তৃতীয় প্রদর্শনী

রতন রায়,কলকাতা
কলকাতার আইসিসিআর-এর প্রায় সাড়ে চার হাজার স্কোয়ার ফুটের সুবিশাল নন্দলাল বোস গ্যালারিতে তিন দিন ধরে হয়ে গেল আর্টভার্স-এর তৃতীয় প্রদর্শনী— স্প্রিং কালার ফিয়েস্তা।

মোট ৬৮ জন চিত্রশিল্পী, ভাস্কর্য এবং স্থিরচিত্রীর একশো ষাটটি অসামান্য শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হয়েছে এখানে।

এই বর্ণময় অভিজাত প্রদর্শনীর উদ্বোধনে হাজির ছিলেন বিশিষ্ট অভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, গভরমেন্ট আর্ট কলেজের প্রাক্তন প্রিন্সিপাল শিল্পী দিপালী ভট্টাচার্য, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন তবলা বাদক পণ্ডিত মল্লার ঘোষ, আইসিসিআর-এর প্রাক্তন রিজিওনাল ডিরেক্টর গৌতম দে, আইসিসিআর-এর রিজিওনাল ডিরেক্টর আর এন গোস্বামী, মেট্রো রেলের ডিজিএম প্রত্যুষ কুমার ঘোষ, বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক সিদ্ধার্থ সিংহ-সহ আরও অনেক বিশিষ্ট জন।

প্রথম দিন থেকেই উপচে পড়া ভিড় দেখে ‘গড : এনসিয়েন্ট এলিয়েন অর আ মিথ’-খ্যাত আর্টভার্সের প্রেসিডেন্ট শুভঙ্কর সিংহ এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে জানান, এ ভাবে যে সাড়া পাব আমি কল্পনাও করতে পারিনি। আমাদের এই প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের শিল্পীরা। আগ্রহ থাকলেও দূরত্বের কারণে অনেকেই অংশগ্রহণ করতে পারেননি। তাই তাঁদের কথা ভেবেই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এ বার শুধু আর কলকাতার মধ্যে আর্টভার্স সীমাবদ্ধ রাখব না। বরং আর্টভার্স পৌঁছে যাবে সেই সব শিল্পীদের কাছে। তাঁদের রাজ্যে। সেখানকার শিল্পীদের নিয়ে ওখানেই প্রদর্শনীর আয়োজন করবে আর্টভার্স।

এই উৎসবে যেমন ধরা পড়েছে চিত্রশিল্পীদের তুলিতে নিসর্গ, প্রকৃতি, প্রেম, হিংসা। বাহারি রঙের ছোঁয়া। ঠিক তেমনি ভাস্কর্যশিল্পীদের হাতের কারুকার্যে ফুটে উঠেছে নানান চিন্তার উৎস। স্থিরচিত্রীদের ক্যামেরায় ধরা পড়েছে বুক বিদীর্ণ করা, চমকে দেওয়া এক-একটি ঘটনার মুহূর্ত।

এই স্প্রিং কালার ফিয়েস্তায় যাঁরা নজর কেড়েছেন, তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন জয়িতা চাটার্জি, আকাশ ফাতওয়ানি, সৌম্য ভট্টাচার্য, রক্তিমাভ ঘোষ দস্তিদার, জয়িতা কুণ্ডু, অরিন্দম নন্দী, অপরাজিতা রাই, ইন্দ্রজিৎ সুর, দিব্য মুখার্জি, সিদ্ধার্থ ব্যানার্জির মতো নবাগত অথচ প্রতিশ্রুতিমান শিল্পীরা। যাঁরা আগামী দিনে তাঁদের নিত্য নতুন কাজের মধ্য দিয়ে এই পৃথিবীতে একটি আঁচড় রেখে যাবেন।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!