(কবি আল মাহমুদ স্মরনে) মীর বাড়ির ঐ মাহমুদ তিনি :শরীফ আবদুল গোফরান

রোজ সকালে একটি ছেলে
চুপটি করে থাকে
ঘুমের ঘোরে হঠাৎ করে
মা বলে সে ডাকে।
লেখাপড়া খেলাধূলায়
মন বসে না পাঠে
গাছের ছায়ায় লতায় পাতায়
ঘুরতো গাঁয়ের মাঠে।
ঘুরতে যেতো তিতাস পাড়ে
সজনে গাছের ছায়ায়
ঠিক দুপুরে দীঘির পাড়ে
ঘুরতো গাঁয়ের মায়ায়।
হাতছানিতে ডাকতো তাঁকে
সবুজ শ্যামল গাঁ
মায়ের চোখে ফাঁকি দিয়ে
চলতো যে তার পা।
দুয়ার খুলে বাইরে যেতো
হাতে ছড়ার বই
পেছন থেকে ডাকতো যে মা
মাহমুদ গেলি কই?
ততক্ষনে যায় চলে যায়
গাঁয়ের মেঠো পথে
কাঁঠালচাঁপার গন্ধ ছড়ায়
পালিয়ে যেতে যেতে।
ঘুরে ঘুরে সময় কাটায়
নেইতো কোন কাজ
খুঁজে তাঁকে পায়না যে মা
মাথায় পড়ে বাজ।
রোজ বিকালে সবাই খেলে
শিশু-কিশোর যতো
মাঠের কোণে বসেই আছে
বুদ্ধিমানের মতো।
খেলাধূলা ভাল্লাগে না
উড়ো উড়ো মন
বখতিয়ারের ঘোড়ায় চড়ে
করতো যে গমন।
বিকেল গিয়ে সন্ধ্যে গড়ায়
পড়ায় সবার মন
সেই ছেলেটি ঘুরতো তখন
রেলের ইষ্টিশন।
অন্ধকারে ফিরতো ঘরে
মায়ের আদেশ কড়া
জলদি করে পড়তে বসো
স্কুলের সব পড়া।
বইটি খুলে বসা বটে
মাথায় কি আর ঢোকে
দোয়েল শ্যামা ঘুঘুর ছবি
ভাসছে যে তার চোখে।
মনটা তখন চলে যেতো
পাহাড় নদী গাঁয়ে
অন্ধকারে জোনাক আলো
ঘুরতো পায়ে পায়ে।
মীরবাড়ির ঐ মাহমুদ তিনি
সবাই চিনে তাকে
শহর নগর গাঁও গেরামে
মনটা পড়ে থাকে।।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!