কবিতার শিরোনাম: বিচি বৃত্তান্ত।। সাবিত আল হাসান।।

নেত্রী যদি দাঁড়াও বলেন, বলেন যদি বস,
বলেন যদি— আমার পায়ে নাকের ডগা ঘষ,
বসব তখন, ঘষব তখন, আপন নাকের আগা;
নেত্রী যদি বলেন তখন— কল্লা এবার জাগা;
বলব তখন লাজুক স্বরে— নেত্রী, বলেন কী যে;
কল্লা আমি তুলব তখন, চরণ গেলে ভিজে।
কবুল করেন আপনি আমায়, করেন যদি বরণ;
যাবজ্জীবন চেটেই যাব এমন করে চরণ।
চাটব চরণ, রাখব স্মরণ— নেত্রী আমার দেবী;
নেত্রী হলেন মাজার শরিফ, আমরা নিছক সেবী।

সবার আগে ভাঙব আমি আপন পিঠের হাঁড়;
নেত্রী যদি চাহেন, হব পূর্ণকালীন ভাঁড়।
হাঁটব না আর পায়ের ওপর, চলব বুকের ভরে;
যেমন করে চলছে ইঁদুর, আবার যেমন মরে।
দুগ্ধপোষা বাচ্চা যেমন গড়ায় ঘরের খাটে,
হাঁডের দেখা পেলেই যেমন ডগের ছানা চাটে;
চাটব তেমন, হাঁটব তেমন, যেমন হাঁটে কেঁচো;
নেত্রী যদি বলেন শুধু— হাজার বছর বেঁচো।
রাজার মতন বাঁচব, আহা, নেত্রীপূজায় নেচে;
অর্ধপোয়া মগজ দিলাম জলের দামে বেচে।

যাহাই ছিল, নেত্রী আমার, উজাড় করেই দিসি;
নেত্রী যত তোলেন ছবি, ভর্তি আমার পিসি;
জ্বলুক লোকে, বলুক লোকে ইচ্ছেমতো ছি-ছি;
বাড়ান যদি চরণযুগল, দিলাম করে কিসি;
একটু এবার রহম করুন, বানান আমায় ভিসি

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!