একজন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

৪৭/১ পুরানা পল্টন। ‘সুবর্ণা’-ছায়াঘেরা, শীতল, ছিমছাম একটি বাড়ি। এ বাড়ির সঙ্গে রাজধানীর খুব বেশি বাড়িকে মেলানো যাবে না। যেমন মেলানো যাবে না এখানে বাস করা মানুষটাকেও। এ বাড়িতেই বাস করেন খ্যাতিমান আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। প্রখ্যাত এ আইনজীবী এক সময় প্রতিনিয়ত সরব ছিলেন আদালত আর মিডিয়ায়।

এখন অনেকটাই নীরব। কেমন আছেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। তার ঘনিষ্ঠজনরা জানান, বার্ধক্য তাকে কাবু করেছে। অনেকদিন ধরে শরীরটাও ভালো যাচ্ছে না। দিন কাটাচ্ছেন অনেকটা নীরবে, নিভৃতে। বই, পত্রিকা পড়ে, টিভি দেখে সময় কাটে তার। পারতপক্ষে বাসা থেকে বের হন না। বের হলেও হুইলচেয়ারই ভরসা। প্রিয়প্রাঙ্গণ সুপ্রিম কোর্টেও এখন নিয়মিত পা পড়ে না তার। যান কালেভদ্রে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নতুন-পুরনো প্রায় সব মামলাই পরিচালনা করেন তার ছেলে ব্যারিস্টার ফাহিমুল হক ও জুনিয়র আইনজীবীরা। তিনি পরামর্শ দেন। পুরানা পল্টনের ওই বাসার নিচতলায় তার চেম্বার বেশিরভাগ সময়ই নীরব থাকে। চেম্বারে দায়িত্বরত একজন বলেন, ‘স্যার বেশিরভাগ সময়ই বাসার দোতলার কক্ষে থাকেন। নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া সেখান থেকে নিচে নামেন না। কথা বলেন কম। চেম্বারেও বসেন না খুব একটা। মাঝে মধ্যে যখন নিচে নামেন, কোথাও যান তখনই তাকে দেখি। তার জুনিয়র আইনজীবীরা মাঝেমধ্যে চেম্বারে আসেন। আগে গাজীপুরের চন্দ্রায় তার প্রতিষ্ঠিত হাসপাতাল ও বাগানবাড়িতে যেতেন প্রায় প্রতি সপ্তাহে। এখনও যান তবে, অনিয়মিত।’ সম্প্রতি ব্যারিস্টার রফিক-উল হক’র পুরানা পল্টনের ‘সুবর্ণা’য় কথা হয় তার সঙ্গে। কেমন আছেন? তিনি বলেন, ‘ভালো নেই। বয়স হয়েছে।’ বর্তমান রাজনীতি ও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে কী ভাবছেন- রফিক-উল হক বলেন, ‘আমার এখন মরার বয়স হয়েছে। ওসব নিয়ে এখন আর চিন্তা করি না। ভাবিও না। আগে ভাবতাম। কথা বলতাম। এখন আর বলি না। বলতে চাইও না।’

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে রাজধানীর বেসরকারি একটি হাসপাতালে তার বাম পায়ে অস্ত্রোপচার হয়। এরপর থেকে তার স্বাভাবিক হাঁটাচলা ব্যাহত হচ্ছে। মাঝেমধ্যে পায়ে ব্যথা হয়। যে কারণে হুইল চেয়ারে যাওয়া-আসা করতে হয়। তার ঘনিষ্ঠজনরা জানান, ২০১১ সালে প্রিয়তমা স্ত্রী ডা. ফরিদা হকের মৃত্যুর পর থেকেই নিঃসঙ্গতা অনুভব করতেন তিনি। আর এখন বার্ধক্য যোগ হয়ে সেই নিঃসঙ্গতা আরো বেড়েছে। পুরানা পল্টনের ওই বাসার দোতলায় তাকে দেখাশোনা করেন একাধিক গৃহভৃত্য। তারা জানান, বয়সের কারণে রফিক-উল হকের জীবনযাপনেও অনেকটা পরিবর্তন এসেছে। ঘুম থেকে উঠেন একটু দেরিতে। পরিমিত আহার করেন। খাবারের তালিকায় থাকে কাচা ছোলা, চা, ভাত, আম, দুধ, চিড়া।

রফিক-উল হকের জুনিয়র এক আইনজীবী বলেন, ‘স্যার লোকসমাগম ও গণমাধ্যম এড়িয়ে চলেন। কারো সঙ্গে বেশি সময় নিয়ে কথা বলেন না। সংবিধান, আইন, আদালত, দেশের রাজনীতির প্রতি এখন আর আগের মতো আগ্রহ নেই। আগে যেভাবে এসব নিয়ে সরব ছিলেন এখন তা একেবারেই নেই। নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া আদালতেও আসেন না খুব একটা। আদালত সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়েও এখন তার আগের মতো উৎসাহ নেই। স্যারের মামলাগুলো এখন আমরাই পরিচালনা করি। তিনি আমাদের পরামর্শ দেন। আর পুরানা পল্টনের ছায়াশীতল, নিরিবিলি  এই বাড়িটি তার এত প্রিয় যে এখান থেকে কোথাও যেতে চান না তিনি।’

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২রা নভেম্বর কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ১৯৫৭ সালে দর্শন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ১৯৫৮ সালে  এলএলবি পাস করেন।  ১৯৬২ সালে যুক্তরাজ্য থেকে বার এট ল’ সম্পন্ন করেন  তিনি। ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন তিনি। বর্ণাঢ্য  জীবনে আইন পেশায় দীর্ঘ প্রায় ৬০ বছর পার করেছেন। ব্যারিস্টার  রফিক-উল হক বিভিন্ন সময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জিয়াউর রহমান, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সঙ্গে কাজ করেছেন। বিগত সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জমানায় দুই নেত্রী যখন কারাগারে তখন তাদের জন্য অকুতোভয়ে আইনি লড়াই করেন তিনি। একই সঙ্গে দুই নেত্রীর সমালোচনা করতেও পিছপা হননি তিনি। দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও ভাবমূর্তি রক্ষায় বরাবরই সোচ্চার রফিক-উল হক। দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক ও আইনি বিষয় নিয়ে সরকারকে সহযোগিতা করেছেন বর্ষীয়ান এই আইনজীবী। ১৯৯০ সালের ৭ই এপ্রিল থেকে ১৭ই ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রফিক-উল হক। কিন্তু কোনো সম্মানী নেননি। পেশাগত জীবনে তিনি কখনো কোনো রাজনৈতিক দল করেননি। তবে, নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা সবসময় তাঁকে পাশে পেয়েছেন। রাজনীতিবিদদের সম্মান সবসময়ই অর্জন করেছেন তিনি। ব্যারিস্টার রফিক-উল হক তাঁর জীবনের উপার্জিত অর্থের প্রায় সবই ব্যয় করেছেন মানুষের কল্যাণ ও সমাজসেবায়।  আর তার এই উদ্যোগকে বিরল বলে অ্যাখ্যায়িত করেছেন আইন অঙ্গনে তার সমসাময়িকরা।

সাবেক প্রধান বিচারপতি মো. ফজলুল করিম মানবজমিনকে বলেন, ‘ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের সঙ্গে আমার পরিচয় আমার ওকালতি জীবনের শুরু থেকে। সেই ১৯৬৯ সালে। তবে, এর আগে থেকেই তিনি ওকালতি শুরু করছিলেন। আইনজীবী হিসেবে রফিক-উল হক সততা, নিষ্ঠা ও সমতার পরিচয় দিয়েছেন। তিনি একাগ্র চিত্তের মানুষ। দায়িত্বশীলও। কখনো তিনি জাতি, ধর্ম, বর্ণ, দল বিবেচনায় নেননি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পক্ষেও তিনি ওকালতি করেছেন। দুজনকেই তিনি সমভাবে ও সমদৃষ্টিতে দেখেছেন। আগ্রহ নিয়ে দুজনের মামলা পরিচালনা করেছেন। বিচারপতি ফজলুল করিম বলেন, আইনের ব্যাপারে তার যেমন অগাদ জ্ঞান, তেমনি আইনকে তিনি আইনের দৃষ্টিতে দেখেছেন সবসময়। কোন দল দেখেননি। বিনে পয়সায়ও তিনি অনেকের মামলা পরিচালনা করেছেন। আদালতে তাকে খুব সামনে থেকে দেখেছি ও শুনেছি। তার যুক্তিতর্ক খুবই স্পষ্ট ও সাবলীল। ব্যারিস্টার রফিক-উল হক যখন অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তখনো তিনি কোনো পক্ষপাতিত্ব করেননি।’ প্রাক্তন এই প্রধান বিচারপতি বলেন, ২০১০ সালে আমি অবসরে যাই। এরপর থেকে ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের সঙ্গে আর ওইভাবে যোগাযোগ নেই। মাঝে মধ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা-সাক্ষাৎ হতো। এখন আমি নিজেও অসুস্থ। শুনেছি তিনিও অসুস্থ। আমি উনার সুস্বাস্থ্য কামনা করছি। তিনি যেন দীর্ঘায়ু হন। কারণ তার কাছে নতুনদের অনেক কিছু শেখার আছে।

ব্যারিস্টার রফিক-উল সম্পর্কে বলতে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ বলেন, তিনি সমসাময়িককালের একজন অত্যন্ত উঁচুমানের আইনজীবী যাকে বিচারক, আইনজীবীসহ এই পেশার সর্বস্তরের ব্যক্তিগণ শ্রদ্ধা সম্মানের চোখে দেখেন। তিনি এই দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলা কোনো না কোনোভাবে পরিচালনা করেছেন। ওই সব মামলায় বিভিন্ন আইনের ইন্টারপ্রিটেশন (বিশদ ব্যাখ্যা) দেয়া হয়েছে এবং আইনের ভূমিকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই  দেশে ডেভেলপমেন্ট অব ল’তে আইনজীবী হিসেবে এক বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন তিনি। ব্যক্তি হিসেবেও তিনি অত্যন্ত সদয় ও স্নেহপরায়ণ। রোকন উদ্দিন মাহমুদ বলেন, তিনি জীবনে অনেক টাকা উপার্জন করেছেন। আবার সেই অর্থ অনেক জনহিতকর ও মানুষের কল্যাণে ব্যয় করেছেন। তার কিছু দাতব্য প্রতিষ্ঠান আছে। দাতব্য প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে তিনি যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা অত্যন্ত বিরল। তিনি বলেন, আমার সঙ্গে তার সম্পর্ক খুবই অন্তরঙ্গ এবং তিনি আমার শ্রদ্ধাভাজন। শুনেছি তিনি এখন অনেকটাই নিভৃত জীবনযাপন করছেন। তবে, সুপ্রিম কোর্টে মাঝে মধ্যে তার সঙ্গে দেখা হয়, কথা হয়। আমি উনাকে উৎসাহ দিয়ে বলি, উনি যেন সুপ্রিম কোর্টে নিয়মিত আসেন। কারণ, উনাকে দেখলে নতুন আইনজীবীরা উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত হবেন।

রোকন উদ্দিন মাহমুদ বলেন, বিগত ওয়ান ইলেভেনের সময় ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আইনজীবী হিসেবে অত্যন্ত বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছিলেন। ওয়ান ইলেভেন সরকারের বিভিন্ন আদেশ নির্দেশ চ্যালেঞ্জ করে বিভিন্ন মামলা পরিচালনা করেছিলেন। একজন স্পষ্টভাষী ও সাহসী মানুষ হিসেবেও তার সুনাম রয়েছে। তিনি অ্যাটর্নি জেনারেল থাকাকালে বেশকিছু বিরল দৃষ্টান্ত রেখেছিলেন। যে দৃষ্টান্তগুলো উনার আগে বা পরে কেউ দেখাতে পারেনি। উদাহরণ হিসেবে বলতে পারি- তখনকার সময়ে অনেককেই স্পেশাল পাওয়ার অ্যাক্টে ডিটেনশন দিয়ে কারাগারে আবদ্ধ করে রাখা হতো। এর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে হেভিয়াস কর্পাস রিট দায়ের হতো। সেসব ফাইল দেখে যদি তিনি বুঝতে পারতেন যে ডিটেনশন বৈধ হয়নি, রাষ্ট্রের অ্যাটর্নি জেনারেল হওয়া সত্ত্বেও স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে কার্যতালিকার ওইসব মামলাগুলোর বিষয়ে আদালতকে অপেক্ষায় না রেখে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির আটকাদেশ বৈধ হয়নি উল্লেখ করে তাদের ছেড়ে দেয়ার কথা বলতেন। এরকম স্বচ্ছতা অন্য কোনো অ্যাটর্নি জেনারেল দেখাতে পারেননি। শুধু তাই নয়, অন্যান্য রিট পিটিশনের ক্ষেত্রেও তিনি যদি দেখতেন যে সরকারি আদেশ বেআইনি সেখানেও তিনি আদালতে কোনোরূপ ভনিতা না করে তা স্বীকার করে নিতেন। আমি শুনেছি অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক তার যে প্রাপ্য বেতন ছিল, তাও গ্রহণ করেননি। এটিও বিরল দৃষ্টান্ত।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক সম্পর্কে সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী আজমালুল হোসেন কিউসি বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হককে আইনজীবী হিসেবে আমি প্রথম দেখি ১৯৬২ সালে। আমার বাবার (ব্যারিস্টার আসরালুল হোসেন) ফরাসগঞ্জের চেম্বারে। বাবার জুনিয়র আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি। শুরু থেকেই তাকে একজন মেধাবী মানুষ মনে হয়েছে। একপর্যায়ে আমার বাবা তাকে বেশ কিছু মামলা পরিচালনার দায়িত্ব দেন এবং তিনি তা যথেষ্ট দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করেন। ১৯৬৬ সালে বাবা মামলার প্রয়োজনে লম্বা সময়ের জন্য জেনেভাতে যান। ওই সময় চেম্বারের সব মামলার দায়িত্ব বর্তায় তার (ব্যারিস্টার রফিক-উল হক) ওপর। সেই থেকে তিনি একজন ভালো আইনজীবী হিসেবে সুনাম অর্জন শুরু করেন। তিনি বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ও আমি সুপ্রিম কোর্টের একই চেম্বারে দীর্ঘদিন বসেছি। তবে, এখন অসুস্থতা ও বার্ধক্যের জন্য তিনি আদালতে নিয়মিত আসতে পারেন না। তিনি একজন মেধাবী ও পরিশ্রমী আইনজীবী। মামলার প্রয়োজনে প্রচুর পড়াশোনা করেন। মক্কেলদের প্রচুর সময় দেন। মামলা পরিচালনাও করেন খুব নিখুঁতভাবে। আদালতে যখন মামলার শুনানিতে আসেন, পুরোদমে প্রস্তুতি নিয়েই আসেন এবং সময়মতো আসেন, যা এখনকার আইনজীবীদের অনেকের ক্ষেত্রেই খুব একটা দেখা যায় না। আর কাজ এবং দায়িত্বের ব্যাপারে কখনোই তাকে অধৈর্য হতে দেখিনি। ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। এ কারণে যে তার কাছ থেকে আমি অনেক কিছু শিখেছি। এখনো শিখছি। আজমালুল হোসেন কিউসি বলেন, এ পর্যন্ত প্রায় একশ গুরুত্বপূর্ণ মামলায় তিনি অ্যামিকাস কিউরি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া যখনই আদালতের বিচারকরা প্রয়োজন মনে করেছেন তখনই তাকে ডাকেন। এমনকি এ-ও দেখেছি যে আদালতে অন্য মামলার শুনানিকালে বিচারকরা তার কাছ থেকে নানা সময়ে সাংবিধানিক ও আইনের গুরুত্বপূর্ণ ব্যাখ্যা শুনতে চেয়েছেন। তিনি বলেন, একজন সাহসী ও স্পষ্টভাষী মানুষ হিসেবেও তিনি অন্য সবার চেয়ে আলাদা। স্পষ্ট এবং সত্য কথা বলতে কখনো তিনি কাউকে পরোয়া করেননি।

উৎপল রায় | ৯ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!