আল কুরআনের অলৌকিকত্ব।

এক.
কানাডার টরেন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর কীথ মূর (Keeth Moore) ভ্রুণতত্ব (embryology) বিষয়ে বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিশেষজ্ঞ। এ বিষয়ে তার লেখা বই (The Developing Human) অান্তর্জাতিক পুরষ্কার পেয়েছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়েছে।

১৯৮১ সালে সৌদিআরবের দাম্মামে অনুষ্ঠিত ৭ম মেডিকেল কনফারেন্সে কুরআন কারীমে মাতৃগর্ভে মানবভ্রুনের বিবর্তন সম্পর্কে যে অায়াত রয়েছে এগুলির অনুবাদ তাকে দেখানো হলে তিনি বিস্ময়ে বলেন;

It has been a great pleasure for me to help clarify statements in the Quran about human development. It is clear to me that these statements must have come to Muhammad from God, or Allah, because almost all of this knowledge was not discovered until many century later. This proves to me that Muhammad must have been a messenger of God, or Allah… I find no difficulty in accepting that the Quran is the Word of God. (1)

অর্থাৎ;
আমার জন্য এটি আনন্দের বিষয় যে, মানবভ্রুণের বিবর্তন সম্পর্কে কুরঅানের কয়েকটি বিবৃতি ব্যাখ্যার সুযোগ অামি পেয়েছি। আমার কাছে সুস্পষ্ট যে, নিঃসন্দেহে এ সকল বাণী মুহাম্মাদের (সাঃ) নিকট আল্লাহর পক্ষ থেকে এসেছিল। কারণ, এতে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে তার প্রায় কোন কিছুই পরবর্তী কয়েক শতাব্দীর মধ্যে আবিষ্কৃত হয়নি। আমার নিকট এ থেকে প্রমাণিত হয় যে, মুহাম্মাদ (সাঃ) অবশ্যই আল্লাহর রাসুল ছিলেন। অনুরুপভাবে কুরআনকে আল্লাহর বানী বলে স্বীকার করতেও আমার কোন দ্বিধা নেই।

দুই.
ড. তেজাতাত তেজাসেন (Dr. Tejatat Tejasen) থাইল্যান্ডের চিয়াং মাই বিশ্ববিদ্যালয়ের এন্যাটমি বিভাগের চেয়ারম্যান এবং ফ্যাকাল্টি অব মেডিসিনের সাবেক ডীন।

সৌদিআরবের রিয়াদে অনুষ্ঠিত ৮ম মেডিকেল কনফারেন্সের মধ্যে উঠে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন;
In the last three years, I became interested in the Quran………..(2)

অর্থাৎ,
বিগত তিন বছর ধরে আমি কুর আনের বিষয়ে আগ্রহী হয়ে পড়েছি। আমার নিজের স্টাডি এবং এ কনফারেন্সে আমি যা জানলাম তা থেকে আমি এ বিশ্বাসে উপনীত হয়েছি যে, ১৪০০ বৎসর পূর্বে কুরঅানে যা কিছু উল্লেখ করা হয়েছে তা সবই সত্য এবং বৈজ্ঞানিকভাবেই তা প্রমাণ করা যায়।

যেহেতু নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) নিরক্ষর ছিলেন, সেহেতু নিঃসন্দেহে তিনি একজন রাসূল ছিলেন, যিনি সর্বশক্তিমান আল্লাহর নিকট থেকে এ সকল বানী প্রাপ্ত হয়েছিলেন। আমি মনে করি যে, এখনই আমার ঈমানের ঘোষণা দেওয়ার সময়। আমি ঘোষণা দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া কোন মাবুদ নেই এবং মুহাম্মাদ (সাঃ) তার রাসূল।

সুত্র:
(1) I.A.Ibrahim et al., A Brief Guide to Understanding Islam, p 10

(2) I.A.Ibrahim et al., A Brief Guide to Understanding Islam, p 31
Courtesy: IH Manik

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন!
অনুগ্রহ করিয়া এখানে আপনার নাম লিখুন!